শিশুদের অনলাইন নিরাপত্তা – বি স্মার্ট ইউজ হার্ট

“শিশুদের অনলাইন নিরাপত্তা” উদ্যোগটি নিরাপদ ডিজিটাল অংশগ্রহণ এবং মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই অংশীদারীত্বের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। ইন্টারনেটের সম্ভাব্য ঝুঁকি নিয়ে খোলামেলা আলোচনা প্রয়োজন। অনলাইনে চলাফেরার প্রাথমিক নিয়মগুলো যেমন পাসওয়ার্ড এবং ব্যক্তিগত তথ্য সুরক্ষার মতো বিষয়গুলো নিরাপত্তার শীর্ষে থাকা উচিত। এজন্য অভিভাবকদেরকেও অনলাইন ল্যান্ডস্কেপের সাথে পরিচিত করা এবং প্রতিটি প্ল্যাটফর্মের সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্বন্ধে জানাতে হবে। এটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইউনিসেফ এবং টেলিনরের যৌথ উদ্যোগে অভিভাবকদের জন্য একটি গাইডলাইনও তৈরি করা হয়েছে। এছাড়াও, ২০১৪ সাল থেকে আমরা শিশুদের নিরাপদ ইন্টারনেট পরিবেশ সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য এবং পিতামাতা, অভিভাবক এবং শিক্ষকদের সংবেদনশীল করার জন্য দেশব্যাপী স্কুলগুলিতে আউটরিচ প্রোগ্রাম পরিচালনা করে আসছি। ব্র্যাকের সাথে অংশীদার হয়ে আমরা সারাদেশে ১,৩০,০০০ এরও বেশি শিক্ষার্থীকে প্রশিক্ষণ দিয়েছি এবং ২০১৮ সাল পর্যন্ত ২০,০০০ এরও বেশি অভিভাবক এবং শিক্ষককে সচেতন করার জন্য কাজ করেছি। ২০১৮ সালে ইউনিসেফ-এর সাথে আমাদের অংশীদারিত্বের মাধ্যমে আমরা অতিরিক্ত ৪,০০, ০০০ শিক্ষার্থী এবং ৭০,০০০ এরও বেশি পিতামাতা, শিক্ষক এবং অভিভাবকদের কাছে এই সচেতনতা পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছি। এছাড়াও শিশুর যেকোনো নিরাপত্তা, বিশেষ করে অনলাইনের নিরাপত্তার জন্য চাইল্ড হেল্পলাইন “১০৯৮” প্রস্তুত আছে। ২০১৯ থেকে ২০২০ সালের মধ্যে ১২ লক্ষ শিশু এবং ৬ লক্ষ অভিভাবকের মাঝে অনলাইন নিরাপত্তা ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে আমরা বিভিন্ন স্কুলে ৪০০ ক্লাব স্থাপনের পরিকল্পনা নিয়েছি। এছাড়াও সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে সবার মাঝে সচেতনতা পৌঁছানোর জন্য বছরব্যাপী ক্যাম্পেইনটি চালানো হবে।

 

Digi World

  image2 image2

  image2

  

শিশুর প্রতি যে কোনো সহিংসতা বা নির্যাতনের তথ্য জানাতে ফোন করুন ১০৯৮এ।

ঠিক লাইনে Online-এ কমিক্স- ক্লিক করুন

পর্ব ১

পর্ব ২

পর্ব ৩

পর্ব ৪

পর্ব ৫

grameenphone